চাকরিতে আবেদন এবং প্রবেশের বয়সসীমা বৃদ্ধি ৩৫ পর্যন্ত করার পিছনে যুক্তি

“চাকরিতে আবেদন এবং প্রবেশের বয়সসীমা বৃদ্ধি ৩৫ পর্যন্ত চাই কেন?

১) শিক্ষা জীবনে সেশনজটের কারণে ২-৩ বছর সকলের জীবন থেকে নষ্ট হয়েছে বা হতেই থাকবে।
২) করোণার কারণে ২টা বছর নষ্ট হয়েছে সকল শিক্ষার্থীদের জীবন থেকে।
৩) বাংলাদেশের যুব নীতিতে একজন মানুষকে ১৮-৩৫ বছর পর্যন্ত যুবক/যুবতী হিসেবে ধরা হয়, তাই সরকারি চাকরিতে ৩৫ বছর পর্যন্ত প্রবেশাধিকার থাকা উচিত।

৪) করোনার পর পরই job exam overlapping + requirement corruption এর কারণে অনেক সুযোগ নষ্ট হয়েছে। requirement corruption এবং এর সাথে সকল সিন্ডিকেট সহজে নির্মূল করাও কঠিন।
৫) দেশের সকল জনগনের গড় আয়ু বৃদ্ধি পেয়েছে।
৬) দেশের সকল পণ্যদ্রব্যের মূল্যমান উর্ধমুখী।
৭) ২০১৮ সালের নির্বাচনি ইশতেহারে, বাস্তবতার নিরিখে বয়স বৃদ্ধির বিষয়টি তুলে ধরা হয়েছে।

চাকরিতে আবেদন এবং প্রবেশের বয়সসীমা ৩৫ চাই, চাকরি প্রত্যাশী যুব প্রজন্মের ব্যানারে ৯সেপ্টেম্বর ২০২২ ইং তারিখে ঢাকা রিপোটার্স ইউনিটিতে সকাল ১০.০০টায় সাংবদিক সম্মেলন এবং একই দিনে ৯ সেপ্টেম্বর ২০২২ ইং দুপুর বেলা ৩.০০টায় শাহবাগ প্রজন্মচত্তরে চাকরিতে আবেদন এবং প্রবেশের বয়সসীমা ৩৫ চাই, চাকরি প্রত্যাশী যুব প্রজন্মের ব্যানারে বিশেষ জনসভা অনুষ্ঠিত হবে।

About Ruma Khatun

আমি একজন সরকারি চাকরিজীবী। আমি শিক্ষার্থীদের জন্য অবসর সময়ে লেখা-লেখি করি। আমি সরকারি বি এল কলেজের সাবেক শিক্ষার্থী।

Check Also

প্রধানমন্ত্রী শিক্ষা সহায়তা ট্রাস্ট উপবৃত্তি প্রদান

Apply Online Here প্রধানমন্ত্রী শিক্ষা সহায়তা ট্রাস্ট কর্তৃক প্রদত্ত বর্তমানে একটা ভর্তি সহয়তার আবেদন চলের …

Leave a Reply

Your email address will not be published.